ভোলায় যৌতুকের দাবিতে গৃহবধূর দু’হাত ভেঙে দিলো স্বামী

ভোলায় যৌতুকের দাবিতে গৃহবধূর দু’হাত ভেঙে দিলো স্বামী

ভোলা প্রতিনিধি:
ভোলার চরফ্যাশনের দুলারহাটে যৌতুকের দাবিতে চেয়ারের সাথে হাত-পা বেঁধে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন করে পারভিন বেগম (২৮) নামের এক তিন সন্তানের জননী গৃহবধূর দু’হাত ভেঙে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে স্বামীসহ তার পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে।
মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতনের পর দু’হাত ভেঙে দিয়ে অচেতন অবস্থায় বাড়ির পার্শ্ববর্তী রাস্তার পাশে ফেলে রেখে দেয় স্বামী ও তার পরিবারের সদস্যরা। প্রতিবেশী এক নারী দেখতে পেয়ে চিৎকার দিলে প্রতিবেশীরা অচেতন অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে রাতে চরফ্যাশন হাসপাতালে ভর্তি করেন।
নির্যাতনের ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলে নির্যাতনের শিকার গৃহবধূর ভাই মো. মনজু জানিয়েছেন। শুক্রবার সন্ধ্যায় আহম্মদপুর ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডে গৃহবধূর স্বামীর গৃহে এ নির্যাতনের ঘটনা ঘটে।
শনিবার বিকালে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন গৃহবধূ জানান, তাদের ঘরে তিন সন্তান রয়েছে। বিয়ের পর থেকেই যৌতুকলোভী স্বামী তার কাছে নানান অজুহাতে যৌতুক দাবি করে আসছিলেন। বিধবা মায়ের পক্ষে জামাতার যৌতুকের দাবি পূরণ করা সম্ভব না হওয়ায় তাকে প্রায় সময় শারীরিক নির্যাতন করা হতো। সম্প্রতি সময়ে তার স্বামীর বসত ঘর মেরামতের কাছ চলছিলো। এ সময় স্বামী রফিক তার মা ও ভাইদের কাছ থেকে ১ লক্ষ টাকা এনে দিতে বলেন। গত শনিবার তার ছোট ভাই হোটেল শ্রমিক মনজু বোনের শান্তির কথা ভেবে বোনের জামাতাকে ৩০ হাজার টাকা দেন। শুক্রবার বিকালে স্বামীর দাবিকৃত বাকি ৭০ হাজার টাকা এনে দিতে বলেন। এনিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে তর্ক বাধে। সন্ধ্যায় ফের স্বামী রফিক ওই টাকা এনে দিতে বলেন। এ সময় টাকা এনে দিতে অস্বীকার করলে স্বামী তাকে মারধর করে। সন্ধ্যায় স্বামী রফিক, দেবর নিজাম, এমরান, ভাশুরের ছেলে টিপু, জা ইয়ানুর বেগম ও হাজেরা বেগম মিলে চেয়ারের সাথে তার হাত-পা বেঁধে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন করে। তারা মারধর করে তার দু’হাত ভেঙে দেয়। স্থানীয়রা ও স্বজনরা তাকে উদ্ধার করে রাতে চরফ্যাশন হাসপাতালে ভর্তি করে।
গৃহবধূর ছোট ভাই মনজু জানান, বোনর জামাতা যৌতুক হিসেবে ১ লক্ষ টাকা দাবি করেন। বোনের সংসারে শান্তির জন্য তার দাবি মতে তাকে ৩০ হাজার টাকা দেয়া হয়। বাকি টাকার জন্য তার স্বামীসহ পরিবারের সদস্যরা বোনকে নির্যাতন করেন এবং মারধর করে দুই হাত ভেঙে দেয়। বোন অচেতন হয়ে পড়লে তার স্বামী বাড়ির পাশের রাস্তায় ফেলে আসে। প্রতিবেশীদের কাছ থেকে খবর পেয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য আবদুল মান্নানের সহযোগিতায় অচেতন অবস্থায় বোনকে উদ্ধার করে চরফ্যাশন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
অভিযুক্ত স্বামী রফিক জানান, স্ত্রীর ভাইয়ের কাছ থেকে ৩০ হাজার টাকা নেয়ায় তার স্ত্রীর সাথে তার ঝগড়া হয়েছে।
দুলারহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি মো. মোরাদ হোসেন জানান, এ ঘটনায় কোনো লিখিত অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।
ইউএইচ/

সুত্রঃ যমুনা টিভি

  • শেয়ার করুন

সর্বশেষ খবর

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com