বাঘা যতীনের ভাস্কর্য ভাঙ্গার সাথে জড়িত থাকা সন্দেহে নাম আসছে আরও এক যুবলীগ নেতার

বাঘা যতীনের ভাস্কর্য ভাঙ্গার সাথে জড়িত থাকা সন্দেহে নাম আসছে আরও এক যুবলীগ নেতার

কুষ্টিয়ায় বিপ্লবী বাঘা যতীনের ভাস্কর্য ভাঙচুরের ঘটনায় ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি আনিচের নাম আসায় চলছে নানা কানাঘুষা। এবার এ ঘটনায় আরেকটি নাম নিয়ে চলছে আলোচনা। তিনি বতর্মান কয়া ইউপি চেয়ারম্যান ও জেলা যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক জিয়াউল ইসলাম স্বপন। বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মী এবং স্থানীয়দের সাথে কথা বলে এমন তথ্য মিলেছে। পুরো বিষয়টি নিয়ে বিব্রত ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীরা। কুষ্টিয়া শহরে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাঙচুরের দুই সপ্তাহের মাথায় হাতুড়ির আঘাত পড়ে বিপ্লবী বাঘা যতীনের ভাস্কর্যে। উগ্র সাম্প্রদায়িক কোন গোষ্ঠী নয়, মামলায় গ্রেফতার সবাই স্থানীয় যুবলীগ নেতাকর্মী। দলের নেতাকর্মীদের নাম আসায় বিব্রত স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনগুলো। নেতাকর্মীরা বলছেন, নানা অপকর্মে জড়িত যুবলীগ নেতা আনিচকে দলে ভেড়ান স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক জিয়াউল ইসলাম স্বপন। আসন্ন ইউপি নির্বাচনকে ঘিরে প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে ভাস্কর্য ভাঙচুর করা হয়েছে অভিযোগ নেতাকর্মীদের। প্রাথমিক তদন্তে পুলিশ বলছে, স্থানীয় কয়া মহাবিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটিকে চাপে ফেলতেই ভাস্কর্য ভাঙচুর করা হয়। তবে, ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি নিজামুল হক চুনু বলছেন, আনিচের সাথে কমিটির কোনো দ্বন্দ্ব নেই। আসন্ন ইউপি নির্বাচনে বর্তমান চেয়ার‍ম্যান স্বপনের বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়ায় জের ধরেই এই ঘটনা বলে দাবি তার। গ্রেফতার যুবলীগ নেতা আনিচের স্ত্রী ইমা খাতুন জানায়, স্বপনের বিভিন্ন ব্যবসা দেখাশোনা করে আনিচ। যদিও আনিচের সাথে ব্যক্তিগত কোনো সম্পর্ক নেই বলে দাবি ইউপি চেয়ারম্যানের। ভাস্কর্য ভাঙচুরে আরও কেউ জড়িত আছে কিনা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন পুলিশ সুপার এস এম তানভীর আরাফাত। ভাস্কর্য ভাঙচুরের মামলায় গ্রেফতার যুবলীগ নেতা আনিচুর রহমানসহ ৩ জন তিনদিনের রিমান্ডে রয়েছে।

সুত্রঃ যমুনা টিভি

  • শেয়ার করুন
WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com