ধর্ষণ ও আত্মহত্যায় প্ররোচনার দায়ে যুবকের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

ধর্ষণ ও আত্মহত্যায় প্ররোচনার দায়ে যুবকের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

বরিশালে প্রেমের ফাঁদে ফেলে কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষণ ও আত্মহত্যায় প্ররোচনার দায়ে এক যুবককে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। রোববার দুপুরে আসামির উপস্থিতিতে এ রায় দিয়েছেন বরিশাল নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক আবু আজাদ শামীম। দণ্ডপ্রাপ্ত সায়েম আলম মিমু নারায়ণগঞ্জের ওয়ারী থানার যোগিনগর এলাকার সেলিম আলমের ছেলে। আদালতের রাষ্ট্র পক্ষের আইনজীবী ফয়জুল হক জানান, আসামি সায়েম আলমের সাথে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে পরিচয়ের এক পর্যায়ে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে বরিশাল সৈয়দ হাতেম আলী কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রী নাঈমা ইব্রাহিম ঐশির। পরিবারের সাথে বরিশাল নগরীর মুসলিম গোরস্থান রোড এলাকার একটি ভাড়া বাসায় বসবাস করতেন ঐশি। বাবা ইব্রাহিম খলিল গ্রামীণ ব্যাংক কর্মকর্তা। ২০১৬ সালের ১০ আগষ্ট নারায়ণগঞ্জ থেকে বরিশালে আসে সায়েম। কোচিং সেন্টার ফকিরবাড়ি রোডে যাওয়ার কথা বলে বাসা থেকে বের হয়ে, সায়েমের সাথে দেখা করতে যায় ঐশি। পরে তারা দু’জনে নগরীর চকবাজার আবাসিক হোটেল ‘ফেয়ার স্টার’ এর ৩০৯ নম্বর কক্ষ ওঠে। হোটেলের রেজিস্টার খাতায় নিজের নাম মহিমা ইসলাম উল্লেখ করেন ঐশি ওই কক্ষে ঐশিকে ধর্ষণের পর তার গলায় থাকা স্বর্ণের চেইন নিয়ে পালিয়ে যায় সায়েম। প্রতারিত হওয়ার বিষয়টি বুঝতে পেরে লজ্জায় হোটেল কক্ষেই গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে ঐশি। এদিকে, দীর্ঘ সময়ও মেয়ে বাসায় না ফেরায় তার সন্ধানে বের হয় পরিবারের সদস্যরা। পরে পুলিশের মাধ্যমে খবর পেয়ে হোটেলে গিয়ে মেয়ের লাশ শনাক্ত করেন বাবা ইব্রাহিম খলিল। এ ঘটনায় প্রতারক সায়েম আলম মিমু, ফেয়ার স্টার হোটেলের মালিক আব্দুর রব মিয়া ও ম্যানেজার মজিবর রহমানকে আসামি করে কোতয়ালী থানায় মামলা করেন ঐশির বাবা। ২০১৭ সালের ৩১ মার্চ সায়েম ও ম্যানেজার মজিবরকে দোষী সাব্যস্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে পুলিশ। ১৯ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে আসামি সায়েমকে ধর্ষণের দায়ে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড, ৫০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও দুই বছরের কারাদণ্ড ও আত্মহত্যায় প্ররোচনার দায়ে ১০ বছরের কারাদণ্ড, ২৫ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও ১ বছরের কারাদণ্ড এবং স্বর্ণের চেইন চুরির দায়ে ৫ বছরের কারাদণ্ড, ২০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও ৬ মাসের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। তবে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় হোটেল ম্যানেজার মজিবর রহমানকে খালাস দিয়েছেন আদালত।

সুত্রঃ যমুনা টিভি

  • শেয়ার করুন
WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com