ক্যারিয়ারের ১৬ বছর পূর্তির দিনে বিব্রত মাশরাফি! | Ekushey Bangla | একুশে বাংলা

ক্যারিয়ারের ১৬ বছর পূর্তির দিনে বিব্রত মাশরাফি!

ক্যারিয়ারের ১৬ বছর পূর্তির দিনে বিব্রত মাশরাফি!

১৬ বছর আগে ২০০১ সালের ৮ নভেম্বর তখনকার ‘হোম অব ক্রিকেট’ ঢাকার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে বাংলাদেশের ক্রিকেটের অকৃত্রিম বন্ধু জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টেস্ট অভিষেক হল ‘কৌশিক’ নামের এক কিশোরের। লিকলিকে চেহারার দুরন্ত সেই কিশোর অচিরেই সবার মনে জায়গা করে নিলেন।
১৩৫+ কি:মি: গতির আগ্রাসী বোলিং, ব্যাটিং করার দারুণ দক্ষতা আর দুষ্টামি করে সবাইকে মাতিয়ে রাখার জাদুকরী ক্ষমতা সেই কিশোরকে মাশরাফি বিন মুর্তজা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করে। আজ ৮ নভেম্বর ম্যাশের ক্যারিয়ারের ১৬ বছর পূর্তি।
বাংলাদেশের জনপ্রিয়তম ক্রিকেট ব্যক্তিত্ব মাশরাফি বিন মর্তুজা টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসের ৩১ তম খেলোয়াড় যিনি কোনো প্রথম শ্রেণীর ম্যাচ না খেলেই সরাসরি টেস্ট ক্রিকেট খেলেছেন। ম্যাশের আগে সর্বশেষ ১৮৯৯ সালে এমন ঘটনা ঘটেছিল! এমন অসাধারণভাবে যার আবির্ভাব তিনি যে একদিন মহীরুহে পরিণত হবেন সেটা অনেকেই বুঝতে পেরেছিলেন। সময় যতই গড়িয়েছে ততই ধাঁরালো হয়ে উঠেছেন মাশরাফি। বিপরীতে চোট এসে বারবার ছোবল বসিয়েছে। সাতবার অস্ত্রোপচার টেবিলে যেতে হয়েছে। তারপরেও ওয়ানডেতে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ উইকেট শিকারী নড়াইল এক্সপ্রেস।
এই ১৬ বছরের ক্যারিয়ারে গেছে নানা উত্থান পতন।
ইনজুরির কারণে টেস্ট খেলা ছাড়তে হয়েছে। এক পর্যায়ে খোঁড়া অজুহাতে বিশ্বকাপের দল থেকে বাদ পর্যন্ত পড়েছিলেন। আবারও ফিরে এসেছেন ২২ গজে। বল হাতে ঝড় তুলেছেন। অসাধারণ নেতৃত্বগুণে বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে তুলেছেন দলকে। দেশের মাটিতে বিশ্বের বাঘা বাঘা দলের বিপক্ষে টানা ৬টি সিরিজ জিতেছেন। চ্যাম্পিয়নস ট্রফির সেমিফাইনালে নিয়ে গেছেন বাংলাদেশকে। অসাধারণ সব অর্জন এনে দেওয়া মানুষটি একজন ক্রিকেটারের চেয়েও একজন মানুষ হিসেবে কোটি কোটি ক্রিকেটপ্রেমীর মনে ঠাঁই করে নিয়েছেন। জাতীয় দলের সাবেক কোচ ডেভ হোয়াটমোর তাকে আদর করে ‘পাগলা’ বলে ডাকতেন। আর কোটি কোটি ক্রিকেটপ্রেমীর কাছে তিনি ‘গুরু’ কিংবা ‘বস’ কিংবা শুধু ‘ম্যাশ ভাই’ বলেই পরিচিত।
আজ তার ক্যারিয়ারের ১৬ বছর পূর্তির দিনটি অন্যরকম হতে পারত। তার নেতৃত্ব এবারের বিপিএল খেলছে রংপুর রাইডার্স। চিটাগং ভাইকিংসের বিপক্ষে আজকের ম্যাচটি জিততে পারেনি ম্যাশের দল। তাতে অবশ্য কিছু যায় আসে না; কারণ ম্যাশ সবচেয়ে বাস্তব সত্যটাই বিশ্বাস করেন এবং সবসময় বলে থাকেন, ‘ক্রিকেট মানেই জীবন নয়। এটা তো শুধুমাত্র একটা খেলা’। মাঠের এই হারজিত দিয়ে জীবনের হিসেবগুলো মেলানো যায় না। এক দল জিতবে অন্য দল হারবে এটাই স্বাভাবিক।
তবে সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামের একটি ঘটনা আজ প্রথমে হতভম্ব পরে ক্ষুব্ধ করে তুলেছে দেশের ক্রিকেটপ্রেমীদের। চিটাগং ভাইকিংসের হয়ে খেলা ম্যাশের জাতীয় দলের সতীর্থ শুভাশীষ রায় তেড়ে গেছেন তার দিকে! এই ঘটনায় হতবাক হয়ে পড়েছে সবাই। পরে সংবাদ সম্মেলনে সব দোষ নিজের ঘাড়ে নিয়ে, উল্টো দুঃখ প্রকাশ করে আবারও মহত্বের প্রমাণ দিয়েছেন ম্যাশ। ক্রিকেট মাঠে ক্রিকেটারদের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়েই থাকে। কিন্তু মাশরাফির সঙ্গে তার নিজ দলের সতীর্থ এমন কাণ্ড করে বসবেন এটা যেন ভাবাই যায় না!
বাংলাদেশের ক্রিকেটের এই অবিসংবাদিত নায়কের ক্যারিয়ারের ১৬ বছর পূর্তির দিনটি অন্যরকম হলেও পারত!

ফেসবুক মতামত

সর্বশেষ খবর

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com